মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

মামলার আবেদন

বরাবর,

চেয়ারম্যান সাহেব,

মোল্লারহাট ইউনিয়ন পরিষদ

মোল্লারহাট, নলছিটি, ঝালকাঠি।

 

বিষয়: সম্পতি ভাগ বাটোযারার মাধ্যেমে ফিরে  পাওয়ার আবেদন।

 

                    বাদী                                           বিবাদী

মো. সিরাজুল ইসলাম (মামুন) খন্দকার গং             মো. আব্বাস উদ্দিন (বাদল)খন্দকার গং

পিতা: তৈয়ব আলী খন্দকার                            পিতা: তৈয়ব আলী খন্দকার

 সাং দক্ষিণ কামদেবপুর।                               সাং দক্ষিণ কামদেবপুর। ।

 

মহাত্নন,

যথাবিহীত সম্মান পূর্বক বিনীত নিবেদন এই  আমি বাদী পক্ষ মো: সিরাজুল ইসলাম (মামুন) খন্দকার গং। পিং তৈয়ব আলী খন্দকার এর দ্বিতীয় পক্ষের সন্তান, আমার বাবার জীবদ্দশায় আমরা বাবার সাথে স্বপরিবারে ঢাকায় থাকতাম। আমার বড় মা তাহারা স্বপরিবারে গ্রামের বাড়ীতে থাকতেন এবং সেই সুবাদে গ্রামের বাড়ীর সমস্ত  সম্পত্তি, বাড়ী ঘর, বাগান, নাল ইত্যাদি ভূমি দখল ভোগ করতেন। আমার বাবা বিগত ৫/৬ বছর আগে মারা যান। তৰপ্রেক্ষিতে আমরা দ্বিতীয় ঘরের পরিবার বর্গ আকুল সাগরে হাবুডুবু খাই এবং এরই মধ্য থেকে লেখাপড়া করে আমি বড় হই।আমি একজন প্রকৌশলী ছাত্র। আমার লেখাপড়ার খরচ চালাবার মত উুপার্যন ক্ষম আমার সংসারে কেহ  নাই। তাই আমি আমার বাবার বাড়ি এসে আমার পৈত্রিক অংশ প্রথম পকেষর পরিবার বর্গের কাছে দাবী করি। তাহারা  বিভিন্ন ছলতারনায় আমাকে আমার পৈত্রিক মস্পত্তির অংশ  থেকে বঞ্চিত করতে চায়। যার কারনে আমার পড়া-লেখা থেকে প্রকৌশলী নামের শিক্ষা প্রদীপটি নিভে যাওয়ার আশস্কা দেখা দিয়েছে, এবং পাশাপাশি আমার শাথা গোজার ঠাই বিলুপ্ত হইদে চলেছে। এরই মধ্যে প্রথম পক্ষ আমার বাবার বাগান হইতে ১/২ লক্ষটাকার গাছ ৪/৫দিন আগে বিত্রি করিয়াছেন।দযাহার অংশ আমাকে কিছুই দেয় নাই। যার কারনে আমি একজন প্রকৌশলী ছাত্র হইয়া উক্ত বর্ণনা মতে আপনার বরাবরে বিচার প্রার্থনা করছি।

 

অতএব, মহোদয় উপরি উল্লেখিত বিষয়াদি বিবেচনা করে আমার পৈত্রিক সম্পত্তি ভাগাভাগির মাধ্যমে আমার পৈত্রিক ন্যায্য হিস্যা আমাকে ফিরিয়ে দিতে সুমহানের মর্জি হয়।

তাং

 

নিবেদক

মো: সিরাজুল ইসলাম (মামুন) খন্দকার

পিং মো: তৈয়ব আলী খন্দকার

সাং দক্ষিণ কামদেবপুর। ।


Share with :

Facebook Twitter